fbpx
skip to Main Content
গর্ভধারণের প্রস্তুতি – কেন এবং কীভাবে

গর্ভাবস্থা আপনি এবং আপনার সঙ্গীর জন্য একটি সুন্দর সময় যেখানে আপনারা একটি নতুন জীবনকে পৃথিবীতে আনার জন্য ছোট ছোট করে অনেক স্বপ্ন সাজাতে থাকেন। আপনাদের দুজনেরই অনেক দায়িত্ব ও কর্তব্যের জন্য প্রস্তুতি নিতে হয়। একটি সুন্দর জীবনকে পৃথিবীতে নিয়ে আসার জন্য শুধু আবেগের বশবর্তী হয়েই নয় মানসিক, শারীরিক, এবং আর্থিক প্রস্তুতি নবজাতক এবং সেই পরিবারের বন্ধন কে ঝুঁকি এবং অনিশ্চয়তা থেকে উত্তরণ করতে পারে। সঠিকভাবে এ সমস্ত বিষয়ের উপর প্রস্তুতি এই স্মরণীয় জীবন কে অসীম সাহায্য করতে পারে।
গর্ভাবস্থা এবং প্যারেন্টহুড যতটা প্রত্যাশিত বাস্তবে এটাকে অর্জন করতে হলে এসব বিষয়ের প্রতি মনোযোগ এবং প্রস্তুতি নিতে হবে। এক্ষেত্রে শুধু একজনেরই নয় বরং দুজন এবং পুরো পরিবারের ই সামঞ্জস্য রয়েছে।

মানসিক প্রস্তুতি:

গর্ভাবস্থাকালীন মানসিক সুস্থতা এবং স্থিতিশীলতা একটি নতুন জীবনকে পৃথিবীতে জন্ম দেওয়ার জন্য সফলতা বয়ে আনতে পারে‌। এজন্য নিজেকে এবং আপনার সঙ্গীকে মানসিকভাবে সুস্থ রাখতে এই পদক্ষেপগুলো নিতে পারেন:

  • প্রসবকালীন হতাশা এবং উদ্বেগ (PDP):
  • প্রসবকালীন ডিপ্রেশন একটি গুরুতর সমস্যা যা উল্লেখযোগ্য সংখ্যক নতুন মায়েদেরকে প্রভাবিত করে। এটি শিশুর জন্য মারাত্মক স্বাস্থ্যঝুঁকি বয়ে আনতে পারে এজন্য এই ব্যাধি প্রতিরোধ এবং এর চিকিৎসার জন্য প্রস্তুতি গ্রহণ করতে হবে। পিডিপি বিকাশের উচ্চ ঝুঁকিতে থাকা প্রসূতিদের মধ্যে রয়েছে:

    -যাদের জীবনে হতাশা এবং উদ্বেগের ইতিহাস রয়েছে
    -পিডিপির অতীত কোন ঘটনা
    -পারিবারিক ও বৈবাহিক দ্বন্দ্ব
    -পিডিপির পারিবারিক কোনো ইতিহাস

    প্রসবোত্তর হতাশা প্রতিরোধ বা হ্রাস করতে পদক্ষেপ নিতে হবে। যে কোন ঝুঁকির কারণ সম্পর্কে সচেতন হওয়া গুরুত্বপূর্ণ, তবে আপনার এটিও স্বীকার করা উচিত যে যে কেউ প্রসবোত্তর হতাশায় আক্রান্ত হতে পারে এমনকি ডিপ্রেশন বা উদ্যোগের সাথে যদি আপনার অতীত অভিজ্ঞতা থাকে তবে আপনার সন্তানের জন্মের পরেও আপনার এই অবস্থার লক্ষণগুলি বিকাশ করতে পারে। এই কারণে এই লক্ষণগুলি সম্পর্কে সচেতন হওয়া গুরুত্বপূর্ণ। সন্তানের জন্মের পরে হতাশা তীব্রতর আকার ধারণ করতে পারে যদি আপনি আপনার ভিতরে এই লক্ষণগুলো থাকে:

    -অপ্রাপ্তির অনুভূতি
    -মনোযোগের অভাব
    -আত্মঘাতী চিন্তা
    -অন্য কারো শিশুর প্রতি অনীহা
    -উদ্বেগ

    আপনি যদি মনে করেন যে আপনার মধ্যে পিডিপি বা অন্যান্য অনুভূতির লক্ষণগুলো রয়েছে তবে আপনার ডাক্তারের সাথে আলোচনা নিশ্চিত করতে হবে। আপনার ডাক্তারের দেওয়া চিকিৎসা গুলো নিতে হবে। যার মধ্যে রয়েছে সেল্ফ কেয়ার, সাইকোথেরাপি, মেডিকেশন, সাপোর্ট গ্রুপ ইত্যাদি। ‌

  • কি আশা করবেন তা‌ সম্পর্কে জানুন:
  • গর্ভাবস্থাযর জন্য প্রস্তুতি নিন। তবে এটি অনাকাঙ্ক্ষিতও হতে পারে এবং কখনো কখনো পরিকল্পনাগুলোকে ও ভেঙ্গে দেয়। মানসিকভাবে প্রস্তুত হওয়ার অর্থ হল আপনি পরিকল্পনা করুন আপনার গর্ভাবস্থার অভিজ্ঞতাটি ঠিক কিভাবে হবে, গর্ভাবস্থায় অপ্রত্যাশিত পরিবর্তনগুলোর জন্য প্রস্তুতি নিন। যেমন চরম বমি ভাব, বিছানায় বিশ্রামে থাকা, পানি জমে যাওয়া, খাবারে অনীহা ইত্যাদি।

  • সামাজিক সমর্থন:
  • গর্ভাবস্থাকালীন সামাজিক সমর্থন অকাল জন্মের ঝুঁকি হ্রাস করে। এটি উদ্যোগ এবং চাপ হ্রাস করার পাশাপাশি স্ট্রেস মোকাবেলা করার ব্যবস্থাকে উন্নত করে।
    সুতরাং গর্ভাবস্থার আগে এবং পরে আপনার দীর্ঘ সংবেদনশীলতা এবং প্রয়োজনীয় তথ্যমূলক সমর্থন নিশ্চিত করতে আপনি যা করতে পারেন তা হল:
    আপনার সঙ্গীর জন্য সময় এবং প্রচেষ্টা ব্যয় করুন। আপনার উদ্বেগ সম্পর্কে কথা বলুন। এবং আপনার যখন প্রয়োজন হবে তখন সাহায্যের জন্য জিজ্ঞাসা করুন।
    পরিবার এবং বন্ধুদের সাথে কথা বলুন। গর্ভাবস্থা চ্যালেঞ্জিং হতে পারে, বিশেষত যদি আপনি গুরুতর সকালে অসুস্থতা বা অন্যান্য চিকিৎসা সংক্রান্ত উদ্বেগের মত জটিলতাগুলো মোকাবেলা করেন। আপনার সাহায্যের দরকার হলে আপনার প্রিয়জনদের জানান।
    আপনার অভিজ্ঞতা অন্য ব্যক্তিদের সাথে ভাগ করে নেওয়া সহায়ক হতে পারে যারা বর্তমানে একই জিনিস টির মধ্য দিয়ে যাচ্ছেন।

  • মানসিক স্বাস্থ্যের প্রয়োজনীয়তা বুঝুন:
  • গর্ভাবস্থাকালীন মানসিক চাপ কেবল মায়েদের নয় তবে নবজাতকের ক্ষেত্রে নেতিবাচক ফলাফলের সাথে সংযুক্ত রয়েছে। যার মধ্যে জন্মের ওজন, অকাল পূর্বকথা, নবজাতকের স্থিতি ইত্যাদি। আপনার যদি পূর্বে হতাশা বা উদ্বেগের কিছু থাকে তবে গর্ভধারণের আগে বিষয়গুলি সম্পর্কে ডাক্তারের সাথে কথা বলুন। আপনার মনস্তাত্ত্বিক স্বাস্থ্যকে অগ্রাধিকার দিন। নিজের জন্য সময় নিন। প্যারেন্টিং ক্লাস করুন। আপনার সন্তানের জন্ম এবং তাকে মানুষ করার জন্য আপনি কি কি পরিকল্পনা করছেন সে সম্পর্কে আপনার সঙ্গীর সাথে কথা বলুন।

    শারীরিক প্রস্তুতি:

    গর্ভধারণের সিদ্ধান্ত জীবনের একটি বিশাল মাইলফলক। তবে আপনার শরীর গর্ভাবস্থার জন্য প্রস্তুত কিনা জেনে নিন:

  • মাল্টিভিটামিন শুরু করুন:
  • গর্ভাবস্থা শরীরের পুষ্টির সেন্টার গুলোতে ট্যাক্স করে। গর্ভাবস্থায় আপনার শরীরের যা প্রয়োজন তা দেওয়ার জন্য প্রস্তুত পূর্ব মাল্টিভিটামিন গুলো বিশেষভাবে তৈরি করা হয়। এটি আপনাকে গর্ভাবস্থার প্রথম দিকে কোন পুষ্টির ঘাটতি এড়াতে সহায়তা করবে।

  • স্বাস্থ্যকর খাবার গ্রহণ :
  • পুষ্টিকর খাবার গ্রহণের মাধ্যমে আপনার প্রয়োজনীয় ভিটামিন এবং খনিজ গুলি পেতে পারেন। প্রক্রিয়াজাত খাবার গুলো উপভোগ করুন। আপনার ডায়েটে বেশি বেশি জৈব ফল এবং শাকসবজি অন্তর্ভুক্ত করতে পারেন।‌

  • শরীরচর্চা:
  • সপ্তাহে কমপক্ষে চার থেকে পাঁচবার শরীর চর্চা গর্ভাবস্থার জন্য প্রস্তুত করার একটি দুর্দান্ত উপায় হতে পারে। প্রতি সপ্তাহে ৩০ মিনিট করে শরীর চর্চা করুন। শরীরচর্চার জন্য হাঁটার মতো বিকল্প আর কিছু হতে পারে না। এর থেকে ভালো উপায় হলো সাইক্লিং করা।

  • স্ট্রেস রিলিফ করার চেষ্টা:
  • ভালো স্ট্রেস রিলিফ আউটলেট গুলি এখনই স্থাপন করা গর্ভাবস্থায় এবং আপনার শিশুর জীবনের প্রথম বর্ষে সহায়তা করবে। শিথিল হাঁটাচলা করার চেষ্টা করুন শ্বাস প্রস্বাসের কিছু গভীর অনুশীলন করুন এবং এমন কিছু করুন যা আপনাকে আনন্দ দেয়।

  • আপনার স্বাস্থ্যকর ওজনে পৌঁছান:
  • আপনার বডি মাস ইন্ডেক্স (বি এম আই) যদি অতিরিক্ত ওজন বা স্থল বিভাগের মধ্যে পড়ে তবে ওজন হ্রাস করার জন্য স্বাস্থ্যকর কৌশল সম্পর্কে আপনার ডাক্তারের সাথে কথা বলুন। আপনার বিএমআই যদি কম ওজনের বিভাগে থাকে তবে তার সাথে কথা বলুন।

  • পর্যাপ্ত ঘুম:
  • আপনার ঘুম ঠিকমতো হচ্ছে কিনা সে বিষয়ে খেয়াল রাখুন। গর্ভাবস্থায় ঘুম যেন ঠিক অধরা হয়ে যায়। ‌ আপনার পর্যাপ্ত ঘুমের প্রতি নজর রাখুন।

  • পর্যাপ্ত পানি পান করুন:
  • আপনার দেহের ৬০ শতাংশ জল দিয়ে তৈরি‌। নিজের সর্বোত্তম স্বাস্থ্যের জন্য আপনার শরীরকে হাইড্রেটেড রাখুন। প্রতিদিন নয় কাপ জল পান করুন। আপনি চাইলে পরিমাণটি বাড়াতে পারেন। নির্দেশিকাগুলি জন্য আপনার ডাক্তারকে জিজ্ঞাসা করুন।

    আপনার সঙ্গীর চেকআপ করান: স্বাস্থ্যকর গর্ভাবস্থা বেশিরভাগ ক্ষেত্রে মহিলার সাথে সম্পর্কযুক্ত। তবে আপনার সঙ্গীর জন্যও এটি পরীক্ষা করা ভালো।‌ বন্ধ্যাত্বের প্রায় ৩০ শতাংশ ক্ষেত্রে পুরুষের কারণ গুলি সনাক্ত করা যায়।

    করণীয় এবং অকরণীয় গুলি জানুন: গর্ভাবস্থায় কোন কাজ গুলি করা উচিত, কোন খাবারগুলো বাদ দেওয়া উচিত এগুলো মেনে চলুন।

    আর্থিক প্রস্তুতি:

    গর্ভাবস্থায় আগে আপনি এবং আপনার সঙ্গী যেমন ছিলেন সেরকম গর্ভাবস্থার পরে থাকবে না। আপনাদের আর্থিক ব্যবস্থার পরিবর্তন আসবে। আপনি গর্ভবতী হওয়ার সাথে সাথে ব্যয় গুলি আরো বাড়তে শুরু করবে। এজন্য আপনার বাচ্চা আসার আগে একের পর এক অর্থনৈতিক ব্যবস্থা গুলো গুছিয়ে নিন।

  • একটি নতুন বাজেট তৈরি করুন:
  • আপনার সঙ্গী আপনি এবং আপনার বাচ্চা আসার পর আপনাদের আয় নিয়ে জীবন-যাপনের পরিকল্পনা করুন। আপনার বর্তমান বাজেট দেখুন। আপনার বিচক্ষণতা, আয় এবং সঞ্চয় দেখুন। ‌ নবজাতকের সাথে আপনাদের জীবন পরিচালনা করার জন্য আর্থিক ভাবে প্রস্তুতি নিন। আপনার‌ আয়-ব্যয়ের সোর্স গুলো কেমন এবং সেগুলো কতটা নিরাপদ এবং স্থিতিশীল সেগুলো পর্যালোচনা করুন। একটি নিরাপদ এবং স্বচ্ছল আর্থিক ব্যবস্থা গর্ভাবস্থা এবং পরবর্তী জীবন কে নিরাপত্তা এনে দেয়।

  • গর্ভাবস্থায় প্রসূতি এবং নবজাতকের চিকিৎসা ব্যয়:
  • গর্ভাবস্থায় আগে এবং পরে প্রস্তুতি এবং নবজাতকের চিকিৎসার খরচ গুলো পর্যালোচনা করুন। নিয়মিত ডাক্তারের চেকআপ, মেডিসিন, পর্যাপ্ত পুষ্টিকর খাবার সহ মা এবং নবজাতকের যেকোনো খরচে আপনার অবস্থা বিবেচনা করুন। এসব বিষয়ে নিরাপত্তার জন্য, এবং আর্থিকভাবে সচ্ছল থাকার ব্যবস্থা নিন। ‌নিকটস্থ হসপিটাল গুলোর খবর নিন এবং সেখানের খরচগুলো পর্যালোচনা করুন।

  • বাচ্চা এবং প্রসূতি মায়ের বিশেষ খরচের জন্য একাউন্ট খুলুন:
  • গর্ভাবস্থার পূর্বে এবং পরে মা এবং নবজাতকের জন্য খুব বেশি অর্থের দরকার হতে পারে। চাইলেই যেন অর্থব্যবস্থা হতে পারে সে জন্য একটি ব্যাংকে আলাদা একাউন্ট খুলুন। পর্যাপ্ত টাকা সঞ্চয় করুন।

    এই আর্থিক কাজগুলো সম্পন্ন করার মাধ্যমে ভবিষ্যতের আপনার সন্তানের যত্ন, স্বাস্থ্য এবং শিক্ষার জন্য একটি শক্তিশালী ভিত্তি তৈরি করে।‌ অবশ্যই পিতা-মাতা হিসেবে আপনার দায়িত্বের তালিকা কখনো শেষ হবে না।‌ শিশুর জন্মের পরে আপনার উইল তৈরি করতে হবে, একজন অভিভাবক নিয়োগ করতে হবে জীবন বীমা পলিসি যুক্ত করতে বা বাড়াতে হবে।‌ গর্ভাবস্থার আগে এবং পরে আর্থিক এই প্রাথমিক গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত গুলির মধ্য দিয়ে কাজ করা আপনার পরিবার বৃদ্ধির সাথে সাথে অর্থের বিষয়ে ভালোভাবে সামঞ্জস্যতা রক্ষা করতে সহায়তা করে। ‌

    This Post Has 60 Comments
    1. I enjoyed reading your thoughts of WP. I have no views on whether Hamnet was a deserved winner, since I barely read any of the longlist. GWO was great, but I do get what some people are saying about different books getting a chance. And GWO already had its time in the spotlight. Corinna Packston Thanos

    Leave a Reply

    Your email address will not be published. Required fields are marked *

    error: Content is protected !!