fbpx
skip to Main Content
বুকের দুধ খাওয়ানোর সময় মা ও শিশুর যত্ন

এক দাদির থেকে শোনা কথা। তার বড় মেয়ের অল্প বয়েসেই বিয়ে হয় আর বাচ্চাও খুব কম বয়েসেই হয়। যার কারনে বাচ্চা দুধ পেতনা। এরপর অনেক কলা কৌশল করে বাচ্চার খাবার তৈরি করতেন দাদি। এখন অনেকের বয়স ও পরিপূর্ণ থাকে কিন্তু বাচ্চা ঠিকঠাক বুকের দুধ পায়না। এমন সাধারনত প্রথম বেবির ক্ষেত্রে লক্ষ করা যায় বেশি। আর বাচ্চা দুধ পেলেও এসময় বাচ্চা ও মায়ের খুব খেয়াল রাখতে হয়।

বাচ্চাদের সাধারনত দুই বছর পর্যন্ত মায়ের বুকের দুধ পান করাতে হয়। এ সসময়টা বাচ্চা ও মায়ের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

প্রথমত বুকে যথেষ্ট পরিমান দুধ আসার জন্য মাকে থাকতে হবে পরিপূর্ণ সুস্থ এবং মানসিক চিন্তা মুক্ত। ঠিকমত ঘুম খাওয়া এবং বিশ্রাম। এসব হলেই কেবল পরিমিত দুধ পাবে বাচ্চা।

বাচ্চার দুধ খাওয়ানোর ক্ষেত্রে মাকে অনেক বিষয় খেয়াল রাখতে হবে। মাকে সেসব খাবার খেতে হবে যা পুষ্টিপূর্ণ। মা যে খাবার খাবেন তার নির্যাস বাচ্চা পেয়ে থাকবে।

বাচ্চার দুধ খাবারের রুটিন করা প্রথম জরুরী কাজ। একটা  নবজাতক দিনে সাত আট বার দুধ খেয়ে থাকে। সে অনুযায়ী মা তাকে দুধ দিবেন। অনেক সময় বাচ্চা অতিরিক্ত খাবার খেয়ে নেয়, যার ফলে বমি কিংবা নাক থেকেও দুধ বের হয়ে থাকে। তাই খাবারের সময় মাকে অবশ্যই খেয়াল রাখতে হবে যেন সে অতিরিক্ত পরিমান না খেয়ে ফেলে।

নবজাতককে দুধ পান করানোর সময় মাকে দিনে স্বাভাবিকের থেকে বেশি খাবার গ্রহন করতে হবে। বেশি বেশি পরিমান তরল খেতে হবে।এতে করে শরীর ডিহাইড্রেটেড হবে না, বুকের দুধের পরিমানও বেশি হবে। মা ও শিশু দুজনই সুস্থ থাকবে।

কিছু বিশেষ খাবার যা খেলে দুধের পরিমান বেশি হয় এবং মায়ের শরীরের উপর ধকল যায়না।

১। গরম দুধ এবং জিরা পান করুন

এক গ্লাস গরম দুধের সাথে এক চা চামচ জিরা গুঁড়ো মিশিয়ে নিন। এবার এটি প্রতিদিন রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে পান করুন। এটি বুকের দুধ বৃদ্ধি করার সাথে সাথে শরীরে আয়রনের ঘাটতি দূর করে থাকে।

২। প্রচুর পরিমাণে পানি পান

বুকের দুধ বৃদ্ধি করার সবচেয়ে সহজ এবং কার্যকরী উপায় হল শরীরকে হাইড্রেটেড রাখা। আর এইজন্য প্রয়োজন প্রচুর পরিমাণে পানি পান করা। প্রতিদিন ৮ থেকে ১২ গ্লাস পানি পান করুন। এটি প্রাকৃতিকভাবে বুকের দুধ বৃদ্ধি করবে।

৩। কালোজিরা

যেসব মায়েদের বুকে পর্যাপ্ত দুধ নেই, তাদের মহৌষধ কালোজিরা। মায়েরা প্রতি রাতে শোয়ার আগে ৫-১০ গ্রাম কালোজিরা মিহি করে দুধের সাথে খেতে হবে। মাত্র ১০-১৫ দিনে দুধের প্রবাহ বেড়ে যাবে। এছাড়া এ সমস্যা সমাধানে কালোজিরা ভর্তা করে ভাতের সাথে খেলেও ভাল ফল পাবে।

৪। মেথি

মেথি মায়ের দুধ বৃদ্ধি করতে বেশ কার্যকর। সারারাত মেথি এক গ্লাস পানিতে ভিজিয়ে রাখুন। পরের দিন সকালে তা পান করুন। এর ভিটামিন, মিনারেল, আয়রন এবং ক্যালসিয়াম রয়েছে যা মায়ের বুকের দুধ বৃদ্ধি করে।

৫। রসুন

প্রতিদিন সকালে খালি পেটে ৩ কোয়া রসুন খেতে পারেন। এটিও আপনার বুকের দুধ বৃদ্ধি করতে সাহায্য করবে। কাঁচা রসুন খেতে না পারলে রান্নায় রসুন ব্যবহার করুন। এছাড়া এক কাপ পানিতে ৩ কোয়া রসুন দিয়ে সিদ্ধ করতে দিন। পানি কমে অর্ধেক হয়ে আসলে এতে এক কাপ দুধ দিয়ে দিন। ফুটে উঠলে চুলা নিভিয়ে দিন। স্বাদ বৃদ্ধির জন্য মধু মিশাতে পারেন। এটি প্রতিদিন সকালে পান করুন।

৬। গরম দুধ এবং দারুচিনি

এক গ্লাস গরম দুধের সাথে এক চা চামচ দারুচিনি গুঁড়ো মিশিয়ে নিন। স্বাদ বৃদ্ধির জন্য এতে এক চা চামচ মধু মিশিয়ে নিতে পারেন। এটি প্রতিদিন পান করুন। এটি আপনার বুকের দুধ বৃদ্ধিতে সাহায্য করবে।

৭। লাউ

লাউতে রয়েছে ভিটামিন, মিনারেল যা দুধ বৃদ্ধি করতে সাহায্য করে। এছাড়া এটি পেট ঠান্ডা করে অ্যাসিডিটি কমিয়ে দেয়। খাবারে নিয়মিত লাউ রাখুন।

৮। দুধ খাওয়ানোর সময়

যখন দুধ পর্যাপ্ত পরিমাণে থাকবে তখনই বাচ্চাকে দুধ খাওয়ানোর চেষ্টা করুন। চেষ্টা করুন দুধ খাওয়ানোর জন্য উভয় স্তন ব্যবহার করতে। এতে দুই স্তনে দুধ বৃদ্ধি পাবে।

৯। তুলসি

তুলসিতে রয়েছে ভিটামিন কে যা মায়ের বুকের দুধ বৃদ্ধি করার সাথে সাথে তার মান উন্নত করে। এটি মায়ের খাওয়ার রুচি বৃদ্ধি এবং কোষ্ঠকাঠিন্য রোধ করে থাকে। চা বা স্যুপের সাথে তুলসি পাতা খেতে পারেন।

১০। খাদ্যাভ্যাস পরিবর্তন

প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় পরিবর্তন আনুন। সবুজ শাক-সবজি, ডিম, দুধ, রসুন, আঙুরের রস, ফলের রস, মুরগির মাংস প্রতিদিন খাওয়ার চেষ্টা করুন। এসব খাবার বুকের দুধ বৃদ্ধিতে সাহায্যে করে থাকে।

এবার কিছু বিশেষ কথা বলি যেটা মা ও শিশুর জন্য খুবই জরুরী। আজকাল আমাদের কিছু মডার্ণ মায়েরা স্তন পান করাতে নারাজ থাকেন। তারা মনে করেন এতে করে স্তন ঝুলে যায় কিংবা শেইপ চেঞ্জ হয়ে যায় তার ফিটনেস নষ্ট হয়ে যাবে। কিন্তু এই চিন্তা বাচ্চা ও মা উভয়ের জন্য ক্ষতিকর। মা যদি সন্তানকে দুধ পান না করায় তবে বাচ্চার শারীরিক গঠন সুঠাম হয়না। এবং শরীরে নানা সমস্যা নিয়ে বাড়তে থাকে। আর মায়ের বুকের দুধ না পান করানোর জন্য তাকে স্তন-ক্যান্সারের ঝুকিতে পড়তে হয়। গবেষণায় দেখা গেছে , যদি বুকের দুধ পান না করান মা তার শিশুকে তবে তা জমাট বেধে থেকে যায় এবং তা একসময় ক্যন্সারের পর্যায় চলে যায়।। বাচ্চাকে দুধপান করান, বাচ্চা ও মা উভয়েই সুস্থ থাকুন।

This Post Has 4 Comments
  1. Casibom Türkiye ve Avrupa’da hizmet veren uluslar arası bir bahis ve casino firması. Site içerisinde, Casibom yeni adres ile giriş yaptığınızda aradığınız her 2021 yılının en iyi casino sitesi seçilen Casibom güvenilir mi ? Casibom giriş sitesi aklınızda kalan sorulara yanıt oluyor. casibom

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!